নদীর ওপর দীর্ঘতম রোপ-ওয়ে চালু গুয়াহাটিতে, মাত্র ৮ মিনিটেই পাড়ি ২ কিলোমিটার

কিছুদিন আগেই ভারতীয় রেল জানিয়েছিল ২০২১ সালের মধ্যেই কাশ্মীরে তৈরি হতে চলেছে পৃথিবীর উচ্চতম রেলসেতু। যার সাহায্যে ২০২২ থেকেই কাশ্মীর রেলপথে ভারতের অন্যান্য অংশের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যাবে। মাস ঘোরেনি এখনও। তারই মধ্যে আরও একটি ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী থাকল ভারতবর্ষ। ব্রহ্মপুত্রের ওপর দিয়েই চালু হয়ে গেল রোপ-ওয়ে। নদী পারাপারের সহায়ক দীর্ঘতম রোপ-ওয়ে ভারতে এখন এটিই।

২০০৬ সালে এই প্রকল্পের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিল অসম সরকার। কিন্তু ২০১১ থেকে নির্মাণ কাজ শুরু হলেও শেষের জন্য দীর্ঘ ৯ বছর এই পরিষেবার জন্য অপেক্ষা করতে হল অসম-বাসীদের। গতকাল সোমবার থেকেই শুরু হয়েছে এই রোপ-ওয়ে পরিষেবা। গুয়াহাটির উন্নয়নমন্ত্রী সিদ্ধান্ত ভট্টাচার্য এবং স্বাস্থ্য ও শিক্ষামন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা সোমবার উদ্বোধন করেন এই রোপওয়ের।  

২ কিলোমিটার দীর্ঘ এই রোপ-ওয়ে যোগাযোগ সাধন করবে দক্ষিণের গুয়াহাটির সঙ্গে উত্তরের কাছারি ঘাটের। আগে ফেরি কিংবা সরাইহাট সেতু পেরিয়ে স্থলপথে যাতায়াত করাই ছিল একমাত্র উপায়। তাতে সময় লেগে যেত প্রায় ৪৫ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টা অবধি। তবে এই লম্বা জার্নিই এখনও মাত্র ৮ মিনিটের দূরত্ব রোপ-ওয়ে পথে।

সুইজারল্যান্ডের তৈরি রোপ-ওয়ে কেবিনগুলি ৩০ জন যাত্রীবহনে সক্ষম। ফলে এক ঘণ্টায় উপকৃত হবেন ২৫০ যাত্রী। তবে আপাতত সামাজিক দূরত্বের কথা মেনেই ১৫ জন মানুষ যাতায়াতের অনুমতি পাবেন একটি কেবিনে। টিকিটের দাম ঠিক করা হয়েছে ৬০ টাকা। দুই পিঠের যাতায়াত মিলিয়ে খরচ পড়বে ১০০ টাকা। 

আরও পড়ুন
দেশের দীর্ঘতম বুদ্ধমূর্তি তৈরি হচ্ছে কুমোরটুলিতে, অনন্য নজির মৃৎশিল্পী মিন্টু পালের

Powered by Froala Editor

More From Author See More