দেশের ১৪টি কলেজে মাতৃভাষায় ইঞ্জিনিয়ারিং পাঠ, থাকছে বাংলাও

আর শুধুই ইংরেজি ভাষায় কারিগরি শিক্ষা নয়, পড়ুয়াদের মাতৃভাষায় পঠনপাঠনের সুযোগ করে দিতে চলেছে দেশের ১৪টি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ। সম্প্রতি একটি বিজ্ঞপ্তিতে এমনটাই জানিয়েছে অল ইন্ডিয়া কাউন্সিল অফ টেকনিক্যাল এডুকেশন। দীর্ঘ সমীক্ষার পর অবশেষে ১৪টি বিশেষ কলেজকে দেশীয় ভাষায় পঠনপাঠনের অধিকার দিল এআইসিটিই।

মাতৃভাষায় বিজ্ঞানচর্চার দাবি ভারতে নতুন নয়। অথচ স্বাধীনতার ৭৪ বছর পরেও উচ্চশিক্ষায় ইংরেজি ভাষার দাপট একপ্রকার অব্যাহতই। বিশেষ করে কারিগরি শিক্ষার মতো আধুনিক পাঠক্রমে ইংরেজি ছাড়া অন্য কোনো মাধ্যমের কথা কল্পনাই করা যায় না। গতবছরই নতুন শিক্ষানীতিতে মাতৃভাষায় কারিগরি শিক্ষা চালু করার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। আর এক বছরের মাথায় সেই প্রস্তাব বাস্তব রূপ পেতে চলেছে। এআইসিটিই সূত্রে জানানো হয়েছে, উত্তরপ্রদেশে ৪টি, রাজস্থানে ২টি এবং উত্তরাখণ্ড ও মধ্যপ্রদেশে ১টি করে মোট ৮টি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে হিন্দি ভাষায় পাঠক্রম চালু হতে চলেছে। আর বাকি ৬টি কলেজ রয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু এবং পশ্চিমবঙ্গে। এই কলেজগুলিতে পঠনপাঠন চলবে যথাক্রমে তেলেগু, মারাঠি, তামিল এবং বাংলা ভাষায়। প্রতি বছর ১ হাজার পড়ুয়া এর ফলে মাতৃভাষায় ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ পাবে।

এআইসিটিই-র এই বিজ্ঞপ্তিকে ঘিরে ইতিমধ্যে আনন্দ প্রকাশ করেছেন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান। শুধু এই ১৪টি কলেজই নয়, ক্রমশ দেশের অন্যান্য ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজগুলিতেও মাতৃভাষায় পঠনপাঠনের পরিকাঠামো গড়ে তোলা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এমনকি আইআইটি, এনআইটি-র মতো প্রতিষ্ঠানগুলিতেও ইংরেজির পাশাপাশি ১১টি দেশীয় ভাষায় পঠনপাঠনের ব্যবস্থা করা হবে। তবে এর পরেও ভারতের মতো বিপুল ভাষাবৈচিত্রের দেশে মাতৃভাষায় শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করার কাজটা খুব সহজ নয়। তাছাড়া, উচ্চশিক্ষার পঠনপাঠনের জন্য প্রয়োজনীয় বইও কি পাওয়া যাবে আঞ্চলিক ভাষায়? সব মিলিয়ে আশার পাশাপাশি থেকে যাচ্ছে আশঙ্কার ইঙ্গিতও।

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
সারা দেশে মাতৃভাষায় শিক্ষাদানে প্রথম পশ্চিমবঙ্গ

More From Author See More

Latest News See More