বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্যের জের, ইস্তফা দিতে বাধ্য হলেন ‘টিন ভগ’ সম্পাদক

কথা ছিল আগামীকাল অর্থাৎ, ২১ মার্চ থেকেই নতুন অফিসের দায়িত্ব নেবেন তিনি। তবে তা আর হয়ে উঠল না শেষ পর্যন্ত। চেয়ারে বসার দুদিন আগেই ইস্তফা দিতে বাধ্য হলেন ‘টিন ভগ’ পত্রিকার নবনিযুক্ত মুখ্য সম্পাদক অ্যালেক্সি ম্যাককমোন্ড। গত বৃহস্পতিবার ‘টিন ভগ’-এর মাতৃসংস্থা ‘কন্ডে নার্ড’-এর পক্ষ থেকে জানানো হয় এই তথ্য।

সপ্তাহ খানেক আগেই সূত্রপাত হয়েছিল বিতর্কের। অ্যালেক্সিকে সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়ার কথা ঘোষণা করার পরই তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন ‘টিন ভগ’-এর অন্ততপক্ষে ২০ কর্মী। এমনকি কাজ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার কথা জানিয়ে উচ্চস্তরে চিঠিও পাঠিয়েছিলেন তাঁরা। অভিযোগ উঠেছিল অ্যালেক্সির জাতিবিদ্বেষী মনোভাব নিয়ে। প্রায় এক দশক আগে শিক্ষার্থী থাকাকালীন ট্যুইটারে এশিয়ান-বিরোধী একাধিক মন্তব্য করেছিলেন তিনি। ধারাবাহিকভাবে করা সেইসব পোস্টের ছবিই হঠাৎ উঠে এসেছিল সামাজিক মাধ্যমে।

অ্যালেক্সির করা পোস্টগুলি যেন সাম্প্রতিক সময়ে আরও প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। যুক্তরাষ্ট্রে মহামারী ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই ক্রমাগত বেড়ে চলেছে এশিয়-আমেরিকানদের ওপর হিংস্রতা। শুধু গত এক বছরে এখনও পর্যন্ত প্রায় চার হাজারের বেশি মানুষ শিকার হয়েছেন জাতিগত বিদ্বেষের। সম্প্রতি আটলান্টায় প্রাণও হারিয়েছেন ৮ এশিয়ান মহিলা। কাজেই স্বাভাবিকভাবে এই ঘটনার রোষও আছড়ে পড়েছে অ্যালেক্সির ওপরে। শুধু ‘টিন ভগ’-এর কর্মীরাই নয়, পাঠকদের একটি বড়ো অংশও প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল নবনির্বাচিত সম্পাদকের বিরুদ্ধে।

তবে ২০১৮ সালে যখন ইতিহাস খুঁড়ে বার করে আনা হয়েছিল সেইসব মন্তব্য, তখনই প্রকাশ্যে ক্ষমাপ্রার্থনা করেছিলেন ম্যাককমোন্ড। গত ১০ মার্চ ‘টিন ভগ’-এর অভ্যন্তরে বিতর্ক ওঠার পরও অতীতের কর্মকাণ্ডের জন্য ক্ষমা চেয়েছিলেন তিনি। জানিয়েছিলেন ছাত্রাবস্থার সময়কার ধারণা এবং মনভার বদলে ফেলেছেন তিনি। তবে তাতেও বরফ গলল না।

আরও পড়ুন
নতুন সম্পাদক ‘বর্ণবিদ্বেষী’, প্রতিবাদ ‘টিন ভগ’-এর ২০ কর্মীর

গতকাল নিজেও ট্যুইট করেন অ্যালেক্সি, নিজের ভুলের কথা আরও একবার স্বীকার করেই লেখেন, ‘টিন ভগ’-এর আভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি এবং পাঠকদের রোষ প্রশমিত করার জন্যই এই সিদ্ধান্ত তাঁর। ‘টিন ভগ’ পরিবারের সদস্য না হতে পারলেও এশিয়দের প্রতি সহানুভূতির পথেই হাঁটবেন তিনি। 

‘টিন ভগ’-এর আগে অ্যাক্সিয়োস রাজনৈতিক পত্রিকায় সম্পাদনা করতেন অ্যালেক্সি। তাঁর পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে অ্যাক্সিয়োস। তবে অ্যাক্সিয়োসের নাটকীয় মন্তব্যের পর নতুন করে শুরু হয়েছে জল্পনা। তবে কি আবার অ্যাক্সিয়োসেই ফিরতে চলেছেন তিনি? তার উত্তর দিতে পারবে একমাত্র সময়ই…

আরও পড়ুন
‘পরিচয়’ পত্রিকার সম্পাদকমণ্ডলীতে ছিলেন এই বাঙালি বিজ্ঞানী, ছাপ রেখেছেন রাজনীতিতেও

Powered by Froala Editor