পৃথিবী থেকে মহাকাশে পৌঁছে দেবে লিফট, অপেক্ষা আর ৩০ বছরের!

দরজা ঠেলে ঢুকে পড়লেন ছোট্টবাক্সে। তারপর বোতামে চাপ দিলেন আঙুল দিয়ে। সঙ্গে সঙ্গে আপনাকে নিয়েই বাক্সটি উঠতে থাকল ওপরের দিকে। হ্যাঁ, লিফট বা এলিভেটরের কথাই বলছি। কিন্তু ধরুন যদি এই লিফটে করেই পৃথিবী ছাড়িয়ে পৌঁছে যাওয়া যেত মহাশূন্যে কিংবা চাঁদের দোরগোড়ায়, কেমন হত তবে? বিগত কয়েক বছর ধরে এমন স্পেস-এলিভেটর তৈরির পরিকল্পনাতেই ডুবে রয়েছেন বিজ্ঞানীরা। চলছে গবেষণার কাজ। হয়তো আর ২৫-৩০ বছরের মধ্যেই বাস্তবায়িত হবে সেই পরিকল্পনা।

যদিও আজ থেকে প্রায় ১২৫ বছর আগে শুরু হয়েছিল এই চিন্তাভাবনা প্রাথমিক বীজবপন। তবে ঠিক এলিভেটর নয়, ধারণাটা ছিল একটু অন্যরকম। ১৮৯৫ সালে প্যারিসের আইফেল টাওয়ারকে দেখে একটি পরিকল্পনা করেছিলেন রাশিয়ান পদার্থবিজ্ঞানী কনস্ট্যান্টাইন সিওলকোভস্কি। ভেবেছিলেন তৈরি করবেন এমনই এক জিওসিঙ্ক্রোনাইজড টাওয়ার। যার উচ্চতা হবে ৩৬ হাজার কিলোমিটার। ভরকেন্দ্র থাকবে পৃথিবীর আকর্ষণ ক্ষেত্রের বাইরে। তবে বলাইবাহুল্য, সেই ভাবনা খাতায় কলমেই থেকে গেছে। কারণ জিওসিঙ্ক্রোনাইজড টাওয়ার বানানো বিজ্ঞানসম্মতভাবে অসম্ভব।

তবে কনস্ট্যান্টাইনের সেই ভাবনাই আবার মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছিল ৮০-র দশকে। ততদিনে মহাকাশবিজ্ঞানে অনেকটাই এগিয়ে গেছে মানব সভ্যতা। বিজ্ঞানীরা প্রস্তাব দিলেন এমন কোনো কৃত্রিম উপগ্রহের বা স্পেশ স্টেশনের সঙ্গে পৃথিবীর সংযোগ করা হবে যার ঘূর্ণন ঘতি পৃথিবীর সমান। অর্থাৎ সেই জিওস্টেশনারি স্যাটেলাইট থেকেই কেবিল সংযোগে জুড়ে দেওয়া হবে নীল গ্রহকে। 

কিন্তু সেখানেও দেখা দিল সমস্যা। বায়ুমণ্ডলের এবং ঘূর্ণনের চাপ সহ্য করার মতো দৃঢ় কোনো পদার্থই খুঁজে পাচ্ছিলেন না বিজ্ঞানীরা। ফলে কেবিল সংযোগও তাত্ত্বিকভাবে সম্ভব হলেও, এক প্রকার কাল্পনিকই হয়ে দাঁড়িয়েছিল তাঁদের কাছে। সেই তত্ত্বই গতি পেল ১৯৯১ সালে জাপানি বিজ্ঞানী সুমিও ইজিমা’র দৌলতে। পৃথিবী প্রথমবারের জন্য দেখল লোহার থেকেও বহুগুণ দৃঢ় কোনো অধাতব পদার্থ। কার্বন ন্যানোটিউব। যা প্রায় হালকা লোহার থেকে ৬ গুণ।

তবে পরীক্ষা করে দেখা গেল, পৃথিবীর ঘূর্ণনের চাপের কাছে টিকতে পারছে না এই ন্যানোটিউবও। তবে উপায়? শুরু হল কার্বন ন্যানোটিউবের বিকল্প সন্ধান। কার্বন ন্যানোটিউবের থেকেও দৃঢ় বোরন নাইট্রেট ও আরও বেশ কিছু পদার্থের ন্যানোটিউবও তৈরি হয়েছে এর মধ্যেই। দরকার সেই দৃঢ়তাকে আরও খানিকটা বাড়িয়ে নেওয়া। সম্প্রতি সেই গবেষণাই চালিয়ে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। বলা ভালো জাপানের বিজ্ঞানীরা। কার্যত এই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ তাঁরা। প্রকল্পটির দায়িত্বও কাঁধে তুলে নিয়েছে জাপানের ওবায়াসি কর্পোরেশন নামক একটি সংস্থা। ২০২৫ সালের মধ্যেই তৈরি হয়ে যাবে ঘূর্ণনের চাপ সহনশীল পদার্থ, এমনটাই আশাবাদী তাঁরা। তারপর আরও ২০-২৫ বছর সময় লাগবে সম্পূর্ণ পরিকাঠামো প্রস্তুতিতে। 

ওবায়াসি কর্পোরেশনের হিসাব অনুযায়ী, পুরো পরিকল্পনার জন্য খরচ হবে প্রায় ৯-১০ হাজার কোটি মার্কিন ডলার। গবেষণায় অর্থসাহায্য দিয়ে ইন্ধন যোগাচ্ছে নাসাও। তবে পৃথিবীর অন্যতম মহাকাশ সংস্থা এই মুহূর্তে কোনোরকম প্রতিশ্রুতি দিতে রাজি নয় এখনই। 

আরও পড়ুন
নতুন খনিজের সন্ধান দিলেন রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা, যৌগ হয়েও কাজ করতে পারে পরিবাহী হিসাবে

তবে এই প্রকল্পের খরচ শুনেই চোখ ছানাবড়া হয়ে গেছে নিশ্চয়ই? হওয়ারই কথা। কিন্তু এর প্রভাব হবে সুদূর প্রসারী। মহাকাশ অভিযানের খরচ এক ধাক্কায় নেমে আসবে অনেকটাই। পৃথিবী থেকে খাদ্য বা গবেষণার সামগ্রী স্পেসস্টেশনে পাঠাতে যা খরচ হয় তার ১ শতাংশও খরচ হবে না স্পেস এলিভেটর বাস্তবায়িত হলে। সময় লাগবে মাত্র ৮ ঘণ্টা। ম্যাগনেটিক কারের মাধ্যমে মহাকাশ ভ্রমণ করতে পারবেন নভশ্চর ছাড়া সাধারণ মানুষও। 

২০১৯ সালেই দুটি চার ইঞ্চির পরীক্ষামূলক উপগ্রহ তৈরি করেছে ওবায়াসি কর্পোরেশন। কিছুদিনের মধ্যেই মহাকাশের মধ্যে পাড়ি দেবে সে-দুটি। সেখানেই তাদের মধ্যেও সংযোগ স্থাপন করবে স্পেস এলিভেটরের প্রযুক্তি। পরীক্ষা করে দেখা হবে এখনও অবধি তৈরি পরিকাঠামো কতটা কাজ করতে পারছে মহাশূন্যে। এই পর্যবেক্ষণের পরে গবেষণার কাজ অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে বলেই আশাবাদী তাঁরা।

এখন শুধুই অপেক্ষা। কে বলতে পারে আর কয়েক বছরের মধ্যেই হয়তো পৃথিবীর নিরক্ষ রেখা থেকে সোজা ওপরে উঠে যাবে ম্যাগনেটিক যান। আর তখন হয়তো ভ্রমণপিপাসু মানুষের ভ্যাকেশনের প্রেফারেন্সের তালিকায় প্রথমেই থাকবে মহাকাশ...

তথ্যসূত্র-
১. Japan Takes Tiny First Step Toward Space Elevator, Jason Daley, Smithsonian Mag
২. A giant elevator could connect Earth to space using current technology, experts say - here's how that might work, MORGAN MCFALL-JOHNSEN, Business Insider
৩. স্পেস এলিভেটর, উইকিপিডিয়া

আরও পড়ুন
এভারেস্টের শিখরেও মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণ, গবেষণার ফলাফলে আতঙ্কিত বিজ্ঞানীরা

Powered by Froala Editor

More From Author See More

Latest News See More