ভ্রাম্যমাণ ট্রাকেই সঙ্গীত পরিবেশন ভেনেজুয়েলার শিল্পীর

কেউ বাজাচ্ছেন স্যাস্কোফোন, কেউ ভায়োলিন, চেলো কিংবা অরগ্যান। আঙুলের ম্যাজিকাল স্পর্শে বেজে উঠছে গ্র্যান্ড পিয়ানোও। এক কথায় মন্ত্রমুগ্ধ করা মঞ্চ-প্রদর্শনী। তবে আকর্ষণীয় বিষয় হল, গোটা মঞ্চটাই ভ্রাম্যমাণ। বিশাল ট্রাকের পিঠে চেপেই সঙ্গীত পরিবেশন করতে করতে এগিয়ে চলেছেন শিল্পীরা। সম্প্রতি এমনই দৃশ্য চোখে পড়ল ভেনেজুয়েলার রাস্তায়।

গোটা পরিকল্পনাটাই প্রখ্যাত ভেনেজুয়েলান পিয়ানোবাদক, সঙ্গীতপরিচালক এবং উপস্থাপক হোসে অগাস্টিন স্যাঞ্চেজের মস্তিষ্কপ্রসূত। ৩৪ বছর বয়সী অগাস্টিন মাত্র ২০ বছর বয়সেই দেশ ছেড়েছিলেন। আমেরিকা তো বটেই, সে বয়সে নেপাল, তিব্বত প্রভৃতি দক্ষিণ এশিয় দেশেও দীর্ঘসময় ঘুরে বেড়িয়েছেন তিনি। সম্পৃক্ত হয়েছেন বৌদ্ধ সংস্কৃতির ‘শান্তিদায়ক’ সঙ্গীতে। ২০১৭ সালে দেশে ফিরে কারাকাস মিউজিক্যাল সিমফোনি অর্কেস্ট্রায় যোগদান করেন তিনি। তৈরি করেছিলেন একগুচ্ছ সঙ্গীত। সেগুলিরই পরিবেশন করা হয় সাম্প্রতিক এই ভ্রাম্যমাণ অর্কেস্ট্রায়। কিন্তু হঠাৎ কেন এই ধরণের প্রদর্শনীর আয়োজন করলেন তিনি? 

আসলে গত বছর থেকেই থাবা বসিয়েছিল করোনাভাইরাস মহামারী। রাজনৈতিক কারণে বিচ্ছিন্ন থাকার দরুণ ব্রাজিল, পেরু কিংবা কলোম্বিয়ার মতো প্রতিবেশীর দেশগুলির থেকে ভেনেজুয়েলায় ভাইরাসের প্রভাব অনেকটাই কম ছিল। তবে সাম্প্রতিক সময়ে ক্রমশ বেড়েই চলেছে সংক্রমণ। আক্রান্ত সব মিলিয়ে ১ লক্ষ ৪১ হাজার মানুষ। মৃতের সংখ্যা দেড় হাজার ছুঁই ছুঁই। আবার কড়া করা হয়েছে দেশের বিধিনিষেধ। আর নিভৃতযাপন যেন মানুষকে ঠেলে দিচ্ছে হতাশার দিকে। ঘাতক ভাইরাসের টিকা আবিষ্কার হলেও, এই সমস্যার সমাধান নেই কারোর হাতেই। তাই নিজের হাতেই দায়িত্ব তুলে নিয়েছিলেন স্যাঞ্জেজ। বিশ্বাস, এই মিউজিক থেরাপিই সারিয়ে তুলতে পারে মানুষের হতাশাকে। তাঁর কথায় ‘মিউজিক্যাল ডিসইনফেকশন’।

ভেনেজুয়েলার রাজধানী কারাকাসের পশ্চিমে ছোট্ট শহর বারকুইসিমেতো। বারকুইসিমেতো বিখ্যাত ‘সঙ্গীত শহর’ নামেই। এই শহর থেকেই উঠে এসেছেন গুস্তাভো দুদামেল-সহ তাবড় সঙ্গীত দিকপালরা। তাই প্রাথমিকভাবে এই শহরকেই বেছে নিয়েছিলেন অগাস্টিন। স্কুল অফ মেডিসিনের সামনে থেকে শুরু করে সারা শহর জুড়েই ঘুরে বেড়ায় মিউজিক্যাল ট্রাকটি। সঙ্গীত পরিবেশন করা হয় কয়েক ঘণ্টা।

আরও পড়ুন
অবসাদ কাটিয়ে স্বাভাবিক জীবনে সঙ্গীতশিল্পী জেমস আর্থার, জানালেন অভিজ্ঞতা

আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন শহরবাসীদের অনেকেই। ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে কারোর চোখ গড়িয়ে নেমে আসে জলও। এককথায় এই কঠিন সময়ে শহরকে নতুন করে প্রাণ ফিরিয়ে দিতে সমর্থ এই ভ্রাম্যমাণ অর্কেস্ট্রা। তবে শুধু বারকুইসিমেতোই নয়, ভেনেজুয়ালার ভিন্ন শহরেও আগামী দিনে প্রদর্শিত হবে একই রকমের অনুষ্ঠান। এমনটাই জানাচ্ছেন সঙ্গীতশিল্পী হোসে অগাস্টিন স্যাঞ্জেজ…

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
সঙ্গীতের ‘অণুপ্রেরণা’য় কাকা, তাঁর কঙ্কাল দিয়েই গিটার বানালেন মার্কিন যুবক!

More From Author See More

Latest News See More