মরুভূমির মধ্যে পরিত্যক্ত শহর, ২০০০ বছর পর আবার জনসমাগম হেগরা-য়

চারিদিকে ধু ধু মরুভূমি। তার মধ্যেই দাঁড়িয়ে আছে অতি প্রাচীন একটি শহর। আজ আর তাকে শহর না বলে সমাধিক্ষেত্র বলাই ভালো। প্রায় ২ হাজার বছর পর আবারও মানুষের পা পড়তে চলেছে হেগরা শহরে। আরবের মরুভূমির মধ্যে অতি প্রাচীন এক শহর। যার ইতিহাসের খুব সামান্যই আমরা জানি।

হেগরা শহরকে তুলনা করা হয় জর্ডনের পেট্রার সঙ্গে। যদিও পেট্রা শহরে ৬০০-র বেশি সমাধি সৌধ আছে। হেগরায় সেটা মাত্র ১১১। এই দুই শহরই তৈরি করেছিল নবাটিয়ান্স যাযাবর সম্প্রদায়। আরব এবং জর্ডন ছাড়াও মিশর এবং মেসোপটেমিয়ায় উটে চড়ে ঘুরে বেড়াত তারা। আজ থেকে প্রায় ২৪০০ বছর আগে হেগরা শহরের পত্তন। তারপর ৪০০ বছরের মধ্যে নবাটিয়ান্স উপজাতির ইতিহাস শেষ হয়ে আসে। সেই থেকে শ্মশানভূমির মতো পড়ে আছে হেগরা। তবে সম্প্রতি হেগরাকে কেন্দ্র করে পর্যটনশিল্পের বিকাশ হবে বলে জানিয়েছে সৌদি সরকার। ফলে আবারও মানুষের কোলাহলে চারিদিক ভরে উঠতে চলেছে।

অর্থনীতির দিক থেকে আরব চিরকাল গুরুত্ব দিয়ে এসেছে খনিজ তেলকেই। অথচ তার সঞ্চয় অফুরন্ত নয়। আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে তাই নিয়ে রাজনীতিও প্রচুর। তাই ২০১৭ সালেই ঘোষণা করা হয়েছিল মিশন ২০৩০-এর কথা। আর এই মিশন অনুযায়ী ঢেলে সাজানো হবে আরবের পর্যটনক্ষেত্রকে। খনিজ তেল অফুরন্ত না হলেও, আরবের ইতিহাস সত্যিই অফুরন্ত। শুধু তার উপযুক্ত চর্চা হয় না।

Powered by Froala Editor

More From Author See More

Latest News See More