ইয়াহু এবং এওএল-এর মালিকানা এবার অ্যাপোলো গ্লোবাল ম্যানেজমেন্টের হাতে

বছর পনেরো আগেও ইন্টারনেট খুললেই হোমপেজে দেখা যেত একটিই ওয়েবসাইট। ইয়াহু। আর ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার বলতেই এওএল। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দুই প্ল্যাটফর্মই প্রাসঙ্গিকতা হারিয়েছে। ইয়াহুর জায়গা দখল করে নিয়েছে গুগল। আর এওএল-এর জায়গা নিয়েছে অসংখ্য কেবল নেটওয়ার্ক প্রোভাইডার বা মোবাইল নেটওয়ার্ক। সব মিলিয়ে ইয়াহু বা এওএল যে এখনও টিকে আছে, এই তথ্যই অনেককে অবাক করতে পারে। তবে শুধু যে টিকে আছে, তাই নয়। এর মধ্যেই আর্থিক দুরবস্থা সামাল দিতে নিলামে তোলা হয়েছিল দুই সংস্থাকে। কিছুদিনের মধ্যেই অ্যাপোলো গ্লোবাল ম্যানেজমেন্ট অধিগ্রহণ করতে চলেছে অ্যাপোলো এবং এওএল।

সোমবার আন্তর্জাতিক মিডিয়া সংস্থা ভেরাইজন এবং অ্যাপোলো গ্লোবাল ম্যানেজমেন্ট কর্তৃপক্ষ একসঙ্গে মালিকানা হস্তান্তরের কথা জানায়। ৫ বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে দুই প্ল্যাটফর্মের ৯০ শতাংশ মালিকানার অধিকারী হতে চলেছে অ্যাপোলো গ্লোবাল। বাকি ১০ শতাংশের মালিকানা অবশ্য ভেরাইজনের হাতেই থাকবে। ভেরাইজনের মিডিয়া বিজনেস প্রধান গুরু গৌরাপ্পানের মতে, কোম্পানির পক্ষে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া সত্যিই কঠিন ছিল। ২০১৫ সালে ভেরাইজন মিডিয়া যখন এই দুই প্ল্যাটফর্মের মালিকানা পেয়েছিল, তখন অনেকটাই আশা ছিল ব্যবসার উন্নতি বিষয়ে। মাত্র ৬ বছরের মধ্যে সেই সমস্ত পরিকল্পনা যে ব্যর্থ হবে, এবং অবশেষে স্বত্বাধিকার বিক্রি কররে দিতে হবে, এমনটা বিশ্বাস করা সত্যিই কষ্টকর। তবু বাস্তবকে তো মেনে নিতেই হবে।

এই ৬ বছরের মধ্যে ইয়াহু এবং এওএল-এর জন্য ঋণের পরিমাণ জমেছে ১৮০ বিলিয়ন ডলার। অথচ বার্ষিক আয় ৬০ বিলিয়ন ডলারের বেশি নয়। ফলে ব্যবসায়িক উন্নতি ঘটাতে না পারলে কোনোভাবেই ঋণ পরিশোধ করা সম্ভব নয়। সেক্ষেত্রে ভেরাইজনের ব্যবসা তো মার খাবেই, অসংখ্য কর্মচারী কাজ হারাবেন। সমস্ত নিরাপত্তার কথা ভেবে দুই প্ল্যাটফর্ম বিক্রি করা ছাড়া কোনো উপায় নেই।

তবে ঋণে জর্জরিত ইয়াহু এবং এওএল নিয়েও যথেষ্ট আশাবাদী অ্যাপোলো গ্লোবাল ম্যানেজমেন্ট কর্তৃপক্ষ। সেইসঙ্গে আরও উন্নতমানের পরিষেবা তৈরি করার দিকেও নজর দেওয়া হবে বলে স্থির হয়েছে। বছর দুয়েকের মধ্যেই সমগ্র প্রযুক্তিকে ৫জি স্তরে উন্নীত করা হবে। সেইসঙ্গে আরও নানা প্রকল্পের বিষয়েও আলোচনা চলছে অ্যাপোলো এবং ভেরাইজনের মধ্যে। পাশাপাশি বর্তমান কর্মচারীদের নিরাপত্তার বিষয়ে অগ্রাধিকার দেওয়ার কথাও জানানো হয়েছে। বর্তমানে ইয়াহু এবং এওএল কার্যত ক্রীড়া ও অর্থনীতির সংবাদ মাধ্যমেই পরিণত হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই আবারও তার পুরনো মর্যাদায় ফিরে আসতে পারে কিনা, আপাতত সেটাই দেখার বিষয়।

আরও পড়ুন
সংবাদ সংস্থা রাষ্ট্রের পাহারাদার নয়, তীব্র প্রতিক্রিয়া মার্কিন জনগণের

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
মার্কিন সেনেট থেকে সাসপেন্ড ১০ রুশ রাষ্ট্রদূত, নিষিদ্ধ বহু বাণিজ্যিক সংস্থা

More From Author See More

Latest News See More