লিনিয়ান সোসাইটি লন্ডনের ফেলো নির্বাচিত হলেন প্রেসিডেন্সির অধ্যাপক

সারা বিশ্বের জীববৈচিত্রের কতটুকুই বা আমাদের জানা? আজও নতুন নতুন সমস্ত প্রজাতির আবিষ্কার ঘটে চলেছে। বিবর্তন ঘটছে বহু প্রজাতির। আর এই সমস্তকিছু নিয়ে গবেষণাকে বিশ্বব্যাপী করে তুলতে আজ থেকে ২৩৩ বছর আগে লন্ডনে গড়ে উঠেছিল লিনিয়ান সোসাইটি। বর্তমানে সারা বিশ্বে জীববিদ্যা বিষয়ক যত সংগঠন রয়েছে, তার মধ্যে এটিই সবচেয়ে পুরনো। ঐতিহাসিক এই সংস্থায় নির্বাচিত ফেলো হিসাবে এবার যোগ দিতে চলেছেন এক বাঙালি গবেষক। প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ডঃ সুমিত মণ্ডল লিনিয়ান সোসাইটির সদস্যপদে নির্বাচিত হয়েছেন।

১৭৮৮ সালে স্যার জেমস এডওয়ার্ড স্মিথ তৈরি করেন এই বিশেষ সোসাইটি। তখন সারা পৃথিবীতে বিভিন্ন প্রজাতি নিয়ে বৈজ্ঞানিক ও বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা সবে শুরু হচ্ছে। প্রজাতিগুলির বৈজ্ঞানিক নামকরণের জন্য ট্যাক্সোনমি ব্যবস্থার সূচনায় বিশেষ অবদান রেখেছিলেন কার্ল লিনিয়াস। তাঁর নামেই এই সংগঠনের নামকরণ করা হয়। ১৮০২ সালে ইংল্যান্ডের রাজপরিবার থেকে স্বীকৃতি পায় এই সংস্থা। পরবর্তীকালে চার্লস ডারউইন, থমাস হাক্সলে, এডওয়ার্ড জেনার, জন ফ্র্যাঙ্কলিনের মতো বিজ্ঞানীরা এই সোসাইটির ফেলো হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তালিকায় বাঙালি বিজ্ঞানীদের সংখ্যাও নেহাৎ কম নয়। আর সেই তালিকাতেই এবার যুক্ত হল ডঃ সুমিত মণ্ডলের নাম।


দীর্ঘদিন ধরেই সুন্দরবনের প্রাণীদের নিয়ে গবেষণা করছেন সুমিতবাবু। তাঁর গবেষণার সূত্রে একাধিক নতুন প্রজাতির সন্ধানও পাওয়া গিয়েছে। কয়েকমাস আগেই সুন্দরবনে একটি নতুন অঙ্গুরিমাল প্রাণী আবিষ্কার করেছিলেন সুমিতবাবু ও তাঁর সহকর্মীরা। সুন্দরবনের নামেই তার নাম রেখেছিলেন সিগাম্ব্রা সুন্দরবনেনসিস। এছাড়াও বিভিন্ন প্রজাতির অজানা বৈশিষ্ট্যের বিষয়েও গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। আর এইসমস্ত গবেষণার স্বীকৃতি হিসাবেই এবার লিনিয়ান সোসাইটিতে তাঁকে ফেলো হিসাবে নির্বাচন করা হল। পূর্ববর্তী একটি সাক্ষাৎকারে সুমিতবাবু জানিয়েছিলেন, “আজকাল আমাদের দেশে পড়ুয়া, গবেষকরা পরিবেশ বা বাস্তুতন্ত্র নিয়ে গবেষণায় তো তেমন আগ্রহী নয়। আমরা গবেষণার ভিতর দিয়ে তাদের মধ্যে আগ্রহটাও বাড়িয়ে দিতে চাইছি।” লিনিয়ান সোসাইটি থেকে ফেলো নির্বাচিত হওয়ায় সুমিতবাবু তাঁর পড়ুয়াদের মধ্যে আরও বেশি করে বাস্তুতন্ত্র বিষয়ক গবেষণায় উৎসাহিত করতে পারবেন নিশ্চই। বিশেষ করে সাফল্যের নতুন নজির যখন তিনি নিজেই তৈরি করতে পেরেছেন।

Powered by Froala Editor

More From Author See More

Latest News See More