সুস্থায়ী উন্নয়নে আরও ২ ধাপ নামল ভারত; পিছিয়ে বাংলাদেশ, নেপালের থেকেও

মাত্র কয়েকদিন হল পেরিয়েছে নির্বাচন যুদ্ধ। আর সেসময় গোটা ভারত জুড়েই একাধিকবার উঠে এসেছে উন্নয়নের প্রসঙ্গ। কিন্তু সত্যিই কি উন্নয়নের পথে হাঁটছে দেশ? রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্ট বলছে অন্য কথা। সাসটেনেবল ডেভেলপমেন্ট বা সুস্থায়ী উন্নয়নের নিরিখে গত বছরের থেকেও বেশ খানিকটা পিছিয়ে গেল ভারত। এমনকি দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, ভুটানের মতো দেশের তুলনাতেও উন্নয়নে পিছিয়ে রয়েছে ভারত। এমনটাই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে জাতিসংঘের সমীক্ষায়।

২০১৫ সালের সুস্থায়ী উন্নয়নের নিরিখে এই সমীক্ষার তোড়জোড় শুরু করেছিল জাতিসংঘ। ২০৩০ সালের মধ্যে প্রতিটা দেশ কতটা পরিকাঠামো উন্নত করতে সক্ষম হবে— সেটার সম্ভাবনা নির্ধারণই ছিল এই সমীক্ষার লক্ষ্য। স্বাস্থ্য পরিকাঠামো, পরিবেশ, পরিচ্ছন্নতা, আইন ও ন্যায়বিচার, ক্ষুধা নিরবারণ, কর্মসংস্থান, লিঙ্গ সমতা, শিল্পোন্নয়ন উদ্ভাবনী শক্তি-সহ মোটি ১৭টি মাপকাঠির ওপরে ভিত্তি করেই এই সমীক্ষা চালানো হয় জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য দেশের ওপরে। তবে জাতিসংঘের এই কর্মসূচি দীর্ঘমেয়াদি নয়। প্রতিবছরই সমীক্ষার ভিত্তিতে পরিবর্তন হয় এই উন্নয়নের তালিকার।

দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম শক্তিশালী অর্থনীতির দাবিদার হওয়া সত্ত্বেও গত বছর এই তালিকায় ভারতের স্থানাঙ্ক ছিল ১১৫। চলতি বছরে আরও দু’ধাপ নেমে ভারত দাঁড়িয়ে ১১৭ নম্বর স্থানে। ১৭টি মাপকাঠির ভিত্তিতে ১০০ পয়েন্টের মধ্যে ভারতের সংগ্রহ মাত্র ৬১.৯ পয়েন্ট। অন্যদিকে বাংলাদেশ, নেপাল, শ্রীলঙ্কা কিংবা ভুটানের মতো ছোট দেশগুলিও পিছিয়ে থেকেও এগিয়ে গেছে ভারতের তুলনায়।

তবে এখানেই শেষ নয়। রাজ্যের দিক থেকে বিশ্লেষণ করলে, উঠে আসছে আরও ভয়ঙ্কর ছবি। ২০৩০ সালের মধ্যে যে সুস্থায়ী উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছানোর কথা— তা সম্পূর্ণ করার সম্ভাবনা বিহার এবং ঝাড়খণ্ডের খুবই কম। এমনই বলছে রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্ট। বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রেই স্বাভাবিকের থেকেও বহুগুণে পিছিয়ে রয়েছে ভারতের এই রাজ্য দুটি। গোটা ভারতের মধ্যে উন্নয়নের নিরিখে সবথেকে এগিয়ে রয়েছে চণ্ডীগড়, কেরল ও হিমাচল প্রদেশ।

আরও পড়ুন
মে মাসে কাজ হারিয়েছেন দেড় কোটি ভারতীয়, স্বাধীনতার পর এই প্রথম

তবে এই তালিকায় অবনমনের থেকেও দেশের চিন্তা বাড়াচ্ছে পরিবেশের রিপোর্ট। দূষণ, জলবায়ু পরিবর্তন, প্রাকৃতিক ভারসাম্যের দিক থেকে ১৮০টি দেশের মধ্যে ভারতের অবস্থান ১৬৮ নম্বরে। তা যথেষ্ট আশঙ্কাজনকই বটে। কারণ, প্রকৃতপক্ষে পরিবেশই অর্থনীতির মেরুদণ্ড। ভেঙে পড়ছে সেই স্তম্ভটাই। এখন দেখার কত দ্রুত ভারত ক্ষত পূরণ করে উঠতে পারে আগামীতে…

আরও পড়ুন
বিরল আইকিউ-র অধিকারী ভারতীয় বংশোদ্ভূত ‘ইয়ং আইনস্টাইন’

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
সমকামীদের বিবাহ-সার্টিফিকেট নিয়ে তীর্যক মন্তব্য কেন্দ্রের, কোনদিকে এগচ্ছে ভারত?

More From Author See More

Latest News See More