সেচ ও নিকাশি ব্যবস্থায় ঐতিহ্যের শিরোপা পেল ভারতের ৪টি প্রাচীন প্রকল্প

সারা দেশ যখন কৃষক আন্দোলন নিয়ে উত্তাল, তখনই কৃষি ব্যবস্থায় বিরল সাফল্যের চিহ্ন হিসাবে জাতিপুঞ্জ থেকে পুরস্কৃত হতে চলেছে ভারতের ৪টি জলসেচ প্রকল্প। তবে এই সাফল্য বর্তমানের নয়। এর দাবিদার অন্তত ১০০ বছরের ইতিহাস। ১০০ বছর বা তার বেশি সময় ধরে সফলভাবে জলসেচ ও বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য ভারতের ৪টি প্রকল্পকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ ইরিগেশন স্ট্রাকচারের শিরোপা দিল ইন্টারন্যাশানাল কমিশন অন ইরিগেশন অ্যান্ড ড্রেনেজ। ২০১৮ সালে আরও দুটি প্রকল্প এই তালিকায় নাম তুলেছিল। সব মিলিয়ে এই তালিকায় ভারতের ৬টি প্রকল্প জায়গা করে নিল।

এবছর যে ৪টি প্রকল্প জায়গা পেল, সেগুলি হল অন্ধ্রপ্রদেশের কামবাম ট্যাঙ্ক, কার্নল-কুদ্দাপা ক্যানেল, পোরুমামিলা ট্যাঙ্ক এবং মহারাষ্ট্রের ৪৯০ বছরের পুরনো ধামাপুর লেক। সেন্ট্রাল ওয়াটার কমিশনের ডিরেক্টর ঋষি শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, ১ ডিসেম্বর তিনি এই ৪টি প্রকল্পের তালিকাভুক্তির খবর পেয়েছেন। বর্তমানে চিন এবং জাপানের পরেই ভারতের স্থান। দীর্ঘদিন ধরে ভারতে কৃষিব্যবস্থায় যে বৈজ্ঞানিক মনন দেখা দিয়েছে, তারই প্রতিফলন এই সাফল্য। এমনটাই মনে করছেন ঋষি শ্রীবাস্তব। পাশাপাশি এইসমস্ত প্রকল্প সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য রাজ্য সরকারগুলিকেও নির্দেশ ও সহযোগিতা প্রদান করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

জাতিপুঞ্জের প্রতিনিধিদের তরফ থেকেও জানানো হয়েছে, ভারতের ঐতিহাসিক কৃষিব্যবস্থা সত্যিই বিস্ময়কর। তবে এতদিন ভারতের পক্ষ থেকে যথেষ্ট মনোনয়ন জমা না পড়ায় তাঁরা তালিকার কাজ এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেননি। আগামী বছরের জন্য ইতিমধ্যে সমস্ত রাজ্যের কাছে মনোনয়ন পাঠানো হয়েছে। এর ফলে ২০২১ সালে অন্তত ৮ থেকে ১০টি প্রকল্পকে তালিকাভুক্ত করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তাঁরা। পাশাপাশি প্রায় ৫ শতাব্দী আগে ধামাপুর লেকের অদ্ভুত পরিকল্পনাও বিস্মিত করেছে তাঁদের। অবশ্য কৃষিপ্রধান দেশ ভারতবর্ষে এমন অসংখ্য ঐতিহ্য যে ছড়িয়ে থাকবে, তাতে আশ্চর্যের কিছু নেই।

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
বিপদের মুখে ইউনেস্কো-র ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট, গোয়া সরকারের সমালোচনায় প্রকৃতিবিদরা

More From Author See More

Latest News See More