হাসপাতাল থেকে ফিরেই জোড়া স্বর্ণপদক মার্কিন অ্যাথলিটের

যেকোনো ক্রীড়াবিদের জীবনেই সবথেকে বড়ো ইভেন্ট হল অলিম্পিক কিংবা প্যারালিম্পিকের মঞ্চ। ফলত, স্বপ্নের সঙ্গে জড়িয়ে থাকে দীর্ঘদিনের কঠোর অনুশীলন আর প্রস্তুতি। তাঁর ক্ষেত্রেও অন্যথা হয়নি। বিগত, চার বছর ধরেই দিন-রাত্রি এক করেছিলেন ঘাম ঝরানোয়। কিন্তু টোকিও প্যারালিম্পিকের মাত্র মাস তিনেক আগেই ফের শুরু হয় পায়ের পেশির সমস্যা। বাধ্য হয়েই বেছে নিতে হয়েছিল অস্ত্রোপচারের পথ। দীর্ঘ একমাস প্রায় কাটাতে হয়েছিল হাসপাতালে। তারপরেও গোটা বিশ্বকে চমকে দিলেন তিনি। হাসপাতাল থেকে ফেরার মাত্র আড়াই মাসের মধ্যে সোনা জিতে গড়লেন অনন্য নজির।

ওকসানা মাস্টার্স। টোকিও-র মঞ্চেই দু’-দুটি ভিন্ন সাইক্লিং-এর ইভেন্টে সোনা জিতে নিলেন আমেরিকান অ্যাথলিট। গত ৩১ তারিখে এইচ৪-৫ বিভাগে প্রথম সোনার স্বাদ পেয়েছিলেন ওকসানা। তারপর ২ সেপ্টেম্বর পুনরায় বড়ো সাফল্য আসে প্যারাসাইক্লিং-এর এইচ-৫ রোড রেস বিভাগে। 

তবে আমেরিকার নাগরিক হলেও, ওকসানার জন্ম ইউক্রেনে। আর তাঁর লড়াই শুরু হয়েছিল একেবারে গোড়া থেকে। সেই গল্পে যেতে গেলে অবধারিতভাবে আসতে বাধ্য অভিশপ্ত চের্নোবিল ঘটনার কথা। না, চের্নোবিল দুর্ঘটনার বছর তিনেক বাদে ওকসানার জন্ম হলেও, তেজস্ক্রিয়তা সংক্রান্ত বেশ কিছু প্রতিবন্ধকতা নিয়েই জন্মেছিলেন তিনি। তাঁর বায়োলজিক্যাল বাবা-মা যে চের্নোবিলেরই বাসিন্দা ছিলেন। ফলত, ছোট্ট কন্যাসন্তানেরও পিছ ছাড়েনি ঘাতক তেজস্ক্রিয়তা। মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন তাঁর স্বয়ং বাবা-মাও। বরং ওকসানার ঠিকানা হয়ে উঠেছিল ইউক্রেনের একটি অনাথাশ্রম। পরবর্তীতে মার্কিন অধ্যাপিকা গে মাস্টার্স দত্তক নেন ছোট্ট ওকসানাকে।

খেলার প্রতি তাঁর আগ্রহ ছিল চিরকালই। আমেরিকায় যাওয়ার পর প্রতিবন্ধকতাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েই শুরু হয় শুরু হয় রোয়িং-এর অনুশীলন। কিন্তু বছর খানেকের মধ্যেই তেজস্ক্রিয়তাজনিত সংক্রমণের কারণে বাদ দিতে হয় তাঁর দুটি পা-ই। কিন্তু তারপরেও থেমে থাকেননি ওকসানা। বরং, নিজের দুর্বলতাকেই হাতিয়ার করে নিয়েছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন
৫৩ বছর বয়সে সোনা জিতে চমক ডাচ প্যারালিম্পিয়ানের

২০১২ সালে লন্ডন প্যারালিম্পিকে প্রথম অংশগ্রহণ করেন ওকসানা। তারপর থেকে তিনি ধারাবাহিকভাবে সামার এবং উইন্টার মিলিয়ে অংশ নিয়েছেন ৫টি প্যারালিম্পিকে। একমাত্র মার্কিন অ্যাথলিট হিসাবে এই কৃতিত্ব রয়েছে তাঁর ঝুলিতেও। ২০১৮ সালেই উইন্টার অলিম্পিকে দু’-দুটি সোনা জিতেছিলেন ওকসানা। এবারেও অব্যাহত থাকল সাফল্যের সেই ধারা। তবে টোকিওয় পদকজয় নিয়ে রীতিমতো উচ্ছ্বাসিত তিনি। হাসপাতাল থেকে ফেরার পরেও যে ভাগ্য সঙ্গ দেবে তাঁর, তা নিজেও ভাবেননি ওকসানা। অলিম্পিকের ইতিহাসে এমন ঐতিহাসিক জয় বিরল বললেই চলে…

আরও পড়ুন
একই দিনে ৩ বার বিশ্বরেকর্ড, প্যারালিম্পিক জ্যাভলিনে স্বর্ণজয় সুমিতের

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
প্যারালিম্পিক শ্যুটিং-এ স্বর্ণপদক, ইতিহাস গড়লেন রাজস্থানের অবনী

More From Author See More