বন্ধ হতে চলেছে ব্রিটিশ আমলের খালাসি ব্যবস্থা, অনিশ্চিত কর্মীদের ভবিষ্যত

চলতি বছরেই ১৭৫ বছরে পা দিল ইন্ডিয়ান রেলওয়ে। আর এই ঐতিহাসিক মুহূর্তেই একাধিক পরিবর্তন ঘটতে চলেছে প্রশাসনিক ব্যবস্থায়। আর এর মধ্যে বাতিল হচ্ছে বেশ কিছু পুরোনো পদও। সম্প্রতি রেল বোর্ডের তরফ থেকে এমন সিদ্ধান্তের কথাই জানানো হয়েছে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বন্ধ হতে চলেছে সেই ব্রিটিশ আমল থেকে চলে আসা খালাসি ব্যবস্থা। পাশাপাশি বাংলো পিওন পদেও আর নতুন কোনো নিয়োগ হবে না বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

ভারতে রেল চলাচলের শুরু থেকেই চলে আসছে খালাসি ব্যবস্থা। প্রথম প্রথম শুধু ডাক-খালাসি, এবং টেলিফোন চালু হওয়ার পর শুরু হয় টেলিফোন অ্যাটেন্ডেন্টের নিয়োগ। তবে বর্তমানে মোবাইল ফোনের যুগে এইসব কর্মচারীর আর কোনো প্রয়োজন আছে কিনা, সেবিষয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। এমনকি এমন অভিযোগও উঠেছে যে রেল বিভাগের অনেক অফিসার গ্রুপ-ডির এইসব কর্মচারীদের প্রায়ই ব্যক্তিগত কাজের জন্য খাটান। পাশাপাশি বাংলো-পিয়োন পদটি নিয়েও প্রায় অনুরূপ অভিযোগ উঠেছে। এমনকি এমন প্রশ্নও উঠেছে, কেন একজন সরকারি কর্মচারীর বাড়িতে আরেকজন সরকারি কর্মচারী কাজ করবেন?

তবে এইসব অভিযোগের পরেও এভাবে দুটি পদ বন্ধ করে দেওয়ায় অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, এভাবে বেকারত্ব বৃদ্ধি পেলে তার দায়িত্ব কে নেবেন? এমনকি জুলাই মাসেই এই দুই পদে নতুন করে যে নিয়োগ করা হয়, তাঁদের ভবিষ্যতও এখন অনিশ্চিত। রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, সেইসব নিয়োগ বাতিল করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। কিছুদিন আগেই রেল কর্তৃপক্ষ রেল-ডাক ব্যবস্থা বন্ধ করে দিয়েছে। এরপর কর্মী বাতিলের সিদ্ধান্তও নেওয়া হল। একে একে ব্রিটিশ আমলের অনেক ব্যবস্থাই বাতিল হতে চলেছে। তবে এর পিছনে নৈতিক কারণের কথা বলা হলেও, খরচ কমানোই প্রকৃত উদ্দেশ্য বলে মনে করছেন অনেকে। বিশেষ করে করোনা পরিস্থিতিতে রেলের আয় কমেছে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে। আর সেই লোকসানের ধাক্কা সামলাতেই এমন পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে বলে মনে করছেন অনেকে।

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
লাইনের দেখভাল করতে, অভিনব ‘রেল বাইসাইকেল’ নিয়ে এল ভারতীয় রেল

More From Author See More

Latest News See More