বিশ্বের প্রাচীনতম বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেছিলেন একজন মহিলা, আজ থেকে ১১০০ বছর আগে

আধুনিক অর্থে বিশ্ববিদ্যালয় বলতে যা বোঝায়, তার ইতিহাস খুব বেশি পুরনো নয়। পৃথিবীর প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বললে আমাদের মনে আসে অক্সফোর্ড বা কেমব্রিজের কথা। এরা কিন্তু প্রাচীনতম বিশ্ববিদ্যালয় নয়। আমরা অনেকেই হয়তো খোঁজ রাখি না, বিশ্বের প্রাচীনতম বিশ্ববিদ্যালয় এখনও মরক্কোর বুকে দাঁড়িয়ে আছে। সেখানে এখনও পড়াশুনো থেকে ডিগ্রি প্রদান সবই হয়।

তখন ৮৫৯ সাল, অর্থাৎ আজ থেকে ১১০০ বছরেরও বেশি আগের ঘটনা। মরক্কোর ফেজ শহরের বুকে তৈরি হলো ইউনিভার্সিটি অফ আল-কারাউইন। এটিই ইউনেস্কো স্বীকৃত বিশ্বের প্রাচীনতম আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই এখানে ডিগ্রি প্রদানের ব্যবস্থা ছিল। পড়ানো হতো প্রাকৃতিক বিজ্ঞান থেকে শুরু করে বিভিন্ন ভাষা ও জ্যোতির্বিজ্ঞানের মতো বিষয়। আর এই বিশ্ববিদ্যালয় যিনি তৈরি করেছিলেন তিনি একজন মুসলিম মহিলা, নাম ফতিমা আল-ফিহরি।

খ্রিস্টীয় নবম শতকে বর্তমান টিউনিশিয়ার কায়রাওয়ান শহরে জন্মেছিলেন ফতিমা। তারপর শৈশবেই পরিবারের সঙ্গে চলে আসেন মরক্কোর ফেজ শহরে। সেখানে প্রাথমিক কিছু জটিলতা কাটিয়ে ফতিমার পিতা বিন আবদুল্লাহ ব্যবসা ক্ষেত্রে বেশ সফল হয়ে ওঠেন। প্রচুর সম্পত্তির মালিক হন। পিতার মৃত্যুর পর ফতিমা ও তার বোন মারিয়াম সেই বিপুল সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হন। মরক্কোর মুসলিম জনগোষ্ঠী তখন ধীরে ধীরে উন্নতি করছে। ফতিমা তাঁর বিপুল সম্পত্তি মসজিদের উন্নয়ন প্রকল্পে ব্যয় করতে থাকেন। কিন্তু তার পাশাপাশি তাঁর মনে হয়, মানুষের উন্নতির জন্য সর্বপ্রথম দরকার শিক্ষা।

আল-কায়রাওয়ান মসজিদের তত্ত্বাবধানেই ফতিমার অর্থানুকুল্যে তৈরি হয় একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ক্রমশ সেটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্তরে পৌঁছে যায়। ৮৫৯ সালে আত্মপ্রকাশ করে বিশ্বের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি অফ আল-কায়রাওয়ান। এই বিশ্ববিদ্যালয় মধ্যযুগে বৌদ্ধিক চর্চার ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিল। আবুল আব্বাস, মোহাম্মদ ফাসির মতো চিন্তাবিদ এই বিশ্ববিদ্যালয়েই শিক্ষালাভ করেছিলেন। ঐতিহাসিক ইবন খালদুন, জ্যোতির্বিদ আল বিত্রুজির নাম জড়িয়ে আছে এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে। এখান থেকেই শিক্ষালাভ করেন পোপ দ্বিতীয় সিলভেস্টার। তাঁর আরবি সংখ্যা আবিষ্কারের কথা তো সবাই জানি। এই বিশ্ববিদ্যালয়েই আছে অন্যতম প্রাচীন একটি গ্রন্থাগার। আর সেই গ্রন্থাগারের সংগ্রহে আছে ৪০০টিরও বেশি দুষ্প্রাপ্য গ্রন্থের পাণ্ডুলিপি। আছে ঐতিহাসিক ইবন খালদুনের ভ্রমণ বৃত্তান্ত। যদিও ক্রমশ বিস্মৃতির অন্তরালে চলে যাচ্ছে বিশ্বের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয়।

ইউনিভার্সিটি অফ আল-কায়রাওয়ান তার জৌলুস হারিয়েছে। আজ বিশ্বের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বললে, এই প্রাচীন প্রতিষ্ঠানটির নাম অনুচ্চারিতই থেকে যাবে। কিন্তু মানবসভ্যতার ইতিহাসে ফতিমার মতো মহীয়সী মহিলা ও তাঁর দূরদৃষ্টির কথা বারবার স্বীকার করতেই হয়। আজও উচ্চশিক্ষায় সর্বত্র বৈষম্যের শিকার হতে হয় মহিলাদের। অথচ সভ্যতার ইতিহাসে উচ্চশিক্ষার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে গিয়েছিলেন একজন মহিলা। ফতিমা আল-ফিহরি।

More From Author See More

Latest News See More