লকডাউনে স্তব্ধ রাজ্য, বয়স্ক ও অসুস্থ মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে এলেন যাঁরা

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দেশজুড়ে দোকানপত্র বন্ধ, এলাকা প্রায় শুনশান। একই ছবি এ-রাজ্যেরও। অনেকেই তাঁদের প্রয়োজনীয় ওষুধ, খাবার হয়তো মজুত করে রেখেছেন ঘরে। কিন্তু সবার পক্ষে কি সেটা সম্ভব হয়েছে? এই অত্যাবশ্যকীয় পণ্য তো এমন দুর্দিনে সবারই প্রয়োজন। এই অবস্থায় মানুষগুলোর পাশে এগিয়ে এসেছেন সুশীল গোয়েঙ্কা। তাঁদের পক্ষ থেকে খাবার এবং ওষুধ ওইসব মানুষদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে, যাঁদের সত্যিই প্রয়োজন আছে।

আরও পড়ুন
কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে এলেন ৫ লক্ষ তরুণ-তরুণী

এই উদ্যোগ শুরু হয় ২১ মার্চ, অর্থাৎ জনতা কার্ফুর আগের দিন থেকে। করোনা এবং লকডাউনের জন্য প্রায় সবাই বাড়িতে বসে। কিন্তু প্রয়োজন তো থেমে থাকে না। খাবার, ওষুধ— এগুলোও শেষ হবে। সেই সময় যাতে কেউ না বিপদে পড়ে, সেটাই লক্ষ্য রাখছেন সুশীল গোয়েঙ্কা, নিতাইদাস মুখার্জি, ও পি সিং, বিশাল রাডিয়ারা। প্রয়োজনের সময় যাতে ওই মানুষগুলো, বিশেষ করে বৃদ্ধ এবং অসুস্থরা ঠিকঠাক যোগান পায় এগুলোর, তারই চেষ্টা করছেন তাঁরা। খোঁজ নিয়ে জিনিসগুলো তাঁদের বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কোনো সার্ভিস চার্জ নিচ্ছেন না এর জন্য। শুধু তাই নয়, একটি অনুসন্ধান কেন্দ্রও তৈরি করা হয়েছে। কেউ ফোন করে জানতে চাইলেন অমুক ওষুধটি কোথায় পাওয়া যাচ্ছে, বা এই খাবারটি বাড়িতে নেই সেটি কোথায় পাওয়া যাবে। সেটাও ফোন মারফৎ জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। লক্ষ্য একটাই - ঘরবন্দি থাকার সময় যাতে কোনো ভারতীয়ই অসুবিধার মধ্যে না পড়েন।

আরও পড়ুন
করোনার টেস্ট কিট তৈরি করল ভারত নিজেই, মাত্র ৬ সপ্তাহের প্রচেষ্টায় সাফল্য

এখনও অবধি এর বিস্তৃতি মূলত সমগ্র কলকাতা, সল্টলেক; এছাড়াও বিষ্ণুপুর, শ্রীরামপুর, কোলাঘাট, হলদিয়া এলাকায়। পরবর্তীতে এই পরিধি যাতে আরও বাড়ে, আরও বহু মানুষ যাতে এর আওতায় আসতে পারেন সেই চেষ্টাই করা হচ্ছে। তবে শুধুমাত্র অত্যাবশ্যকীয় পণ্য অর্থাৎ খাদ্যদ্রব্য আর ওষুধই দেওয়া হবে। অন্য কোনো কিছু নয়। অবশ্য আরও একটি উদ্যোগের কথাও বলছেন তাঁরা। বিদেশ থেকে যদি কেউ বাড়িতে টাকা পাঠাতে চায়, কিন্তু এই মুহূর্তে সেটা সম্ভব হচ্ছে না— এমন মানুষরাও যোগাযোগ করতে পারেন এখানে। তাঁদের তরফ থেকে বাড়িতে, বৃদ্ধ মা-বাবা’র কাছে টাকা পৌঁছে যাবে। যাতে এই দুর্দিনে আমাদের কোনো অসুবিধা না হয়, সে-কারণেই নেওয়া হয়েছে এমন উদ্যোগ।

আরও পড়ুন
বাড়িতেই পৌঁছে দেওয়া হবে টাকা, লকডাউনে আপৎকালীন পরিষেবা ব্যাঙ্কগুলির

পাশাপাশি, এই পুরো উদ্যোগের সঙ্গে যাঁরা জড়িয়ে আছেন, তাঁদের ফোন নম্বর দেওয়া হল। যদি কোনো প্রয়োজন হয়, যোগাযোগ করতে পারেন নিঃসংকোচে -

নিতাইদাস মুখার্জি (সমগ্র দক্ষিণ কলকাতার জন্য)— +919830237261
ডি এন গুপ্তা (সল্টলেক, কাঁকুড়গাছির জন্য)— +919831215561
বিশাল রাডিয়া (উত্তর কলকাতার জন্য) +918420474179
অলোক বেনিরামকা (উত্তর কলকাতার জন্য)— +91 98301 73965
ও পি সিং (হাওড়ার জন্য) +91 93313 74250
অভয় উপাধ্যায় (হাওড়ার জন্য) +91 98311 56236
জিগনেশ থাক্কার— 98303 24101

More From Author See More

Latest News See More